কাঠালিয়ায় যুবককে ডেকে নিয়ে হত্যা

ঝালকাঠির কাঠালিয়ার শৌলজালিয়া ইউনিয়নের বলতলা ছয়ঘর গ্রামের মোঃ রুবেল হাওলাদার (৩২) কে ডেকে নিয়ে কুপিয়ে হত্যা করার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। শনিবার ( জানুয়ারি) দিবাগত রাতে পার্শ্ববর্তী বাবুল হাওলাদারের ঘরের একটি কক্ষ থেকে রুবেলের ক্ষতবিক্ষত রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। রুবেল বলতলা গ্রামের আঃ বারেক খানের পুত্র। ঘটনার পর বাবুল হাওলাদার পলাতক রয়েছে। তবে তার স্ত্রী খাদিজা বেগম (৩০)কে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রুবেলের স্ত্রী রুবী আক্তার জানান, বাবুল হাওলাদার আমার স্বামী রুবেলকে ফোন দিয়ে তার বাড়ীতে ডেকে নেয়। রাত ১০টার দিকে লোক মারফত জানতে পারি রুবেলকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আমি আমার আত্মীয়-স্বজন বাবুলের বাড়িতে গিয়ে তার ঘরের একটি কক্ষে স্বামী রুবেলের লাশ কম্বল দিয়ে ডেকে রাখা হয়েছে, তখন ঘরের ভিতর রক্ত প্রবাহিত হচ্ছিলো। ঘটনার পর পর কাঠালিয়া থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

ব্যাপারে শৌলজালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাহমুদ হোসেন রিপন জানান, স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রুবেলের লাশ রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পাই। ঘটনাস্থলটি অন্য উপজেলার সীমানাবর্তী হওয়ায় সন্ত্রাসীদের অভয়রন্য হিসেবে পরিচিতি। ইতিপূর্বে রুবেলের বাবা আঃ বারেক খান এক ছেলে দূর্বৃত্তদের হাতে খুন হয়েছে। তাই হত্যাকান্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

উল্লেখ্য, গত ১০ বছরের ব্যবধানে রুবেলের বাবা আঃ বারেক খান ভাই রাসেল দূর্বৃত্তদের হাতে খুন হয়। নিহত রুবেলের বিরুদ্ধে কাঠালিয়া, পিরোজপুর ভান্ডারিয়া থানায় ১০টি জিআর মামলা রয়েছে। হত্যার ঘটনাসহ একই পরিবারে পিতা তার দুই পুত্র রুবেল রাসেল হত্যার শিকার হয়।

ঘটনাস্থল ঝালকাঠি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ হাবিবুল্লাহ সিনিয়ির সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ সাখাওয়াত হোসেন (রাজাপুর-কাঠালিয়া সার্কেল) পরিদর্শন করেছেন।

কাঠালিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ পুলক চন্দ্র রায় জানান, হত্যার ঘটনায় পাঁচজনের নামাল্লেখসহ অজ্ঞতনামা কয়েকজনকে আসামি করে নিহত রুবেলর মা লুৎফুন্নাহার বেগম বাদী হয়ে থানায়একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। গতকাল রবিবার সকালে লাশ ময়না তদন্তের জন্য ঝালকাঠি মর্গে প্রেরণ কর হয়েছে

তথ্য ও ছবিঃ কাঠালিয়া বার্তা।